থাইল্যান্ডের গুহায় ১২ জন কিশোরসহ কোচ উদ্ধার

থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে থাকা ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনদিনের শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানের মধ্য দিয়ে মৃত্যুকূপ থেকে সবাইকে নিরাপদে উদ্ধার করা হলো। তিনটি দলে ভাগ করে তাদের উদ্ধার করেন উদ্ধারকারী দল।

থাই নেভি সিলের ফেসবুক পেজে সবাইকে নিরাপদে উদ্ধারের কথা জানানো হয়েছে। উদ্ধার সবাই সুস্থ আছেন।

রোববার ও সোমবার মোট আটজনকে থাম লুয়াং গুহা থেকে উদ্ধার করা হয়। আজ মঙ্গলবার তৃতীয় দিনে ৫ জনকে উদ্ধার করে নিরাপদে গুহার বাইরে আনেন উদ্ধারকারীরা। পুরো উদ্ধার-প্রক্রিয়ায় ৯০ জনের একটি ডুবুরি দল কাজ করে। তাঁদের মধ্যে ৪০ জন থাইল্যান্ডের। অন্যরা বিদেশি।

এর আগে, তৃতীয় দিনের মতো মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল সোয়া ১০টায় উদ্ধার অভিযানে নামে ব্রিটিশ ও থাই ডুবুরি দল।

যদিও ফুটবলারদের উদ্ধারের কাজটা মোটেও সহজ ছিল না। বিবিসির খবরে বলা হচ্ছে, এই গুহাটি সাপের মতো এমনভাবে পেঁচানো এবং এর ভেতরে এতো ফাটল আছে যা উদ্ধারকারীদের জন্যে যেকোন সময় বিপদ ডেকে আনতে পারতো। থাম লুয়াং নামের এই গুহাটির কোথাও কোথাও ১০ মিটার পর্যন্ত উঁচু, কোথাও কোথাও অত্যন্ত সরু আবার কোথাও কোথাও সেটি পানিতে পূর্ণ হয়ে আছে।

গুহাটির ভেতর থেকে বাচ্চাদের বের করে আনার কাজটা কতোটা ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে সেটা অনেক বেশি স্পষ্ট হয়ে উঠে একজন উদ্ধারকারী ডুবুরির মৃত্যুর ঘটনায়।

গুহার ভেতরে অনেক জায়গা পানিতে ভরে আছে। এসব জায়গা পার হয়ে বাচ্চাদের কাছে গিয়ে পৌঁছাতে সক্ষম হয় উদ্ধারকারী ডুবুরিরা। এসময় তাদের সাথে ছিল নিশ্বাস নেওয়ার বিশেষ যন্ত্র। ঠিক বাচ্চাদেরকে একইভাবে সেখান থেকে বের করে আনতে হয়েছে ডুবুরিদের।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জুন বার্ষিক ভ্রমণে থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলে পাহাড়ি এলাকায় গিয়ে হারিয়ে যায় ১১-১৬ বছর বয়সী ১২ ফুটবলার ও তাদের কোচ। পরে ২ জুলাই উত্তরাঞ্চলের চিয়াং রাই প্রদেশের থাম লুয়াং গুহায় তাদের সন্ধান পায় ব্রিটিশ ও থাই ডুবুরি দল। গত রবিবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টা থেকে শুরু হয় তাদের উদ্ধার অভিযান।

 

মতামত দিন