বাংলাদেশে বেসরকারি হাসপাতালে ৭৫ ভাগ প্রসবই সিজারে : স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী

বেসরকারি হাসপাতালে প্রায় ৭৫ শতাংশ প্রসবই সি-সেকশন (সিজার) পদ্ধতিতে করা হয়, দাবি করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক। আজ বুধবার বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে রাজধানী ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিবছরই বাংলাদেশে প্রায় ৩০ লক্ষ সন্তান প্রসব হয়। এর মধ্যে মাত্র ১১ লাখ হয় সরকারি হাসপাতালে। অধিকাংশ বাকিগুলোয় হয় বেসরকারি হাসপাতালে। বেসরকারি হাসপাতালে হওয়া প্রসবের সিংহভাগই সিজার পদ্ধতিতে করে থাকে। সবমিলিয়ে বেসরকারি হাসপাতাল গুলুতে প্রায় ৭৫ শতাংশ প্রসবই সিজারে করা হয়। অথচ ওয়াল্ড হেলথ ওরগানাইজেশনের (ডব্লিউএইচও) মতে ১০ থেকে ১৫ শতাংশের বেশি সিজার হওয়া ঠিক নয়।’

দেশের বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে নবজাতক প্রসবের ক্ষেত্রে সিজারের প্রবণতা ভয়ানক হারে দিনদিন বেড়েই চলেছে, জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘প্রয়োজন নেই, অথচ ব্যবসা করার জন্য সিজার করা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল।’

শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব জিএম সালেহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন— জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা দপ্তরের মহাপরিচালক কাজী মোস্তফা সারোয়ার, জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) প্রতিনিধি ড. আসা টোরকেলসন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব সিরাজুল হক খান ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

মতামত দিন