বিশ্বমানের চলচ্চিত্র বানাতে হবে:প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছিলাম আর তারই চেষ্টায় চলচ্চিত্র শিল্পেরও ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন হয়। আমাদের চলচ্চিত্র কোন এক সময়ে বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছিল। এখন কিন্তু আবার চলচ্চিত্রের সেই জগতটা ফিরে এসেছে। তবে আমি চাই আমাদের চলচ্চিত্র ও শিল্পীরা আরও আধুনিক হবে। কেননা এটা ডিজিটাল বাংলাদেশ। সম্প্রতি আমরা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উত্থাপন করেছি।

অভিনেতা ও কলাকুশলীদের মধ্যে ২০১৬ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার তুলে দিয়ে বিশ্বমানের চলচ্চিত্র নির্মাণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জন্য সরকারের পক্ষ থেকে যা যা দরকার, তার সবই করার আশ্বাস দেন তিনি।

আজ রবিবার (৮ জুলাই) সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এই পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। যৌথভাবে তথ্য মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থা (বিএফডিসি) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

জাতীয় চলচ্চিত্র বিভাগ নিয়মিত ২৮টি শাখায় পুরস্কার প্রদান করে থাকে। তবে ২০১৬ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২৬টি শাখায় দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে চলচ্চিত্রশিল্পে বিশেষ অবদানের জন্য এ বছর ২৯ জন শিল্পী ও কলাকুশলীকে এ পুরস্কার দেয় সরকার।

আমাদের সিনেমা তৈরি বা পরিবেশনার ক্ষেত্রেও আধুনিকতা আসুক। ডিজিটাল পদ্ধতির এই চলচ্চিত্র আরও বেশি করে গ্রাম পর্যন্ত পৌঁছে যাক’- রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে রবিবার বিকেলে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৬’ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি আরও বলেন, আমরা আরও উন্নতমানের ছবি বানাতে চাই। যে ছবি সমাজ সংস্কারে একটা ভাল ভূমিকা রাখবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে, আমাদের সংগ্রামের সঠিক ইতিহাসের চিত্রগুলো মানুষের কাছে তুলে ধরা প্রয়োজন। আমাদের সব সময় মনে রাখতে হবে আমরা মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী জাতি হিসেবে বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে চাই।

কোন দিকেই আমরা পিছিয়ে থাকতে চাই না। শিল্পের দিক থেকে, বিশেষ করে চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য বলছি, আমরা বিশ্বমানের চলচ্চিত্র বানিয়ে যেন এগিয়ে যেতে পারি। তার জন্য যা যা করা দরকার আমি সবই করব।

বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক পূর্বঘোষিত ২৬টি ক্যাটাগরিতে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্যপ্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, তথ্য সচিব আবদুল মালেক ও তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ এমপি।

এ সময় চলচ্চিত্র শিল্পে অসামান্য অবদানের জন্য চিত্রনায়িকা ফরিদা আকতার ববিতা ও চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান ফারুককে যুগ্মভাবে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয়।

 

মতামত দিন